anisulllll11-F-09.jpg

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হক বলেছেন, ‘ঢাকাকে সব ধরনের দুর্যোগ থেকে বাঁচাতে ঢেলে সাজানোর জন্য প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সমন্বয় একটা বড় চ্যালেঞ্জ। আর এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমরা ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের সব বিভাগকে একসূত্রে গেঁথে একটা পরিবার হিসেবে কাজ করছি। দুর্যোগ কখন ঘটবে তার ভবিষ্যদ্বাণী কেউ করতে পারে না। এজন্য আমাদের মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে। ’ রাজধানীর বারিধারায় ডিএনসিসির ওয়ার্ডগুলোর দুর্যোগঝুঁকি ব্যবস্থাপনার সক্ষমতা পরিস্থিতি নিয়ে করা গবেষণা প্রতিবেদন উপস্থাপন অনুষ্ঠানে গতকাল প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আনিসুল হক বলেন, প্রতিটি এলাকায় উন্মুক্ত জায়গা রাখা জরুরি, যেন বিপদে মানুষ সেখানে আশ্রয় নিতে পারে। আর এই কূটনৈতিক এলাকার নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ৮০০ ক্লোজ সার্কিট (সিসি) ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। এর পাশাপাশি ঢাকা উত্তরের প্রতিটি এলাকায় এলইডি সড়কবাতি পৌঁছে দিতে ৪৪২ কোটি টাকার বাজেট একনেকে পাস হয়েছে। আগামী বছর মার্চের মধ্যে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের কোনো জায়গা আর অন্ধকার থাকবে না বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করেন তিনি।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মেসবাহুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রতিবেদন উপস্থাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সংস্থাটির পরিবেশ ও জলবায়ু সার্কেলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ড. তারিক বিন ইউসুফসহ বিভিন্ন ওয়ার্ডের ২০ জন কাউন্সিলর। জাপানের কিয়োটো বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষকের ডিএনসিসির বিভিন্ন ওয়ার্ডের দুর্যোগঝুঁকি ব্যবস্থাপনার সক্ষমতা পরিস্থিতি নিয়ে সম্পন্ন করা গবেষণা প্রতিবেদনে বিভিন্ন বিষয় উঠে আসে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, ডিএনসিসির অবকাঠামোগত, সামাজিক, প্রাকৃতিক ও অর্থনৈতিক সামর্থ্য সূচকে অবস্থান বেশ ভালো। তবে প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা অর্জনে এখনো অনেক কাজ করতে হবে।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / আ/ম

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা