200244Child-teacherxxx

স্কুলের ছাত্রীদের বিবস্ত্র করে দেহ তল্লাশির ঘটনায় অভিযুক্ত সেই ওয়ার্ডেনকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। আজ শনিবার হোস্টেলের ওয়ার্ডেনকে বরখাস্ত করার পাশাপাশি তার বিরুদ্ধে তদন্তেরও নির্দেশ দিয়েছেন জেলা প্রশাসক।

ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যের একটি আবাসিক স্কুলে প্রায় ৭০ জন ছাত্রীকে নগ্ন করে তাদের দেহ তল্লাশি করার অভিযোগ ওঠে। ঘটনাটি গত বুধবার ঘটে। বাথরুমের নালায় রক্তমাখা কাপড় আটকে থাকা এবং দেয়ালে রক্তের দাগ দেখে তিনি পরীক্ষা করাচ্ছিলেন যে কোন কোন ছাত্রীর ঋতুস্রাব হচ্ছে, এ কাণ্ড ঘটানোর পর সংবাদমাধ্যমকে এমনটাই ব্যাখ্যা দেন ওয়ার্ডেন। তিনি ছাত্রীদের মধ্য থেকে দুজনকে দিয়ে অন্যদের তল্লাশি করান বলে জানান। মেয়েরা অভিভাবকদের কাছে বিষয়টি জানানোর পর স্কুলে বিক্ষোভ দেখান শিক্ষার্থীদের বাবা-মায়েরা।

পরে ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকদের অভিযোগের ভিত্তিতে মুজফ্ফরনগরের কস্তুরবা গান্ধী গার্লস রেসিডেন্সিয়াল স্কুলের ওই ওয়ার্ডেনের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩২৩ ও ৫০৯ ধারায় মামলা দায়েক করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে জেলাশাসক ডিকে সিং জানান, আবাসিক স্কুলের ওই ওয়ার্ডেনকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। একই সঙ্গে শুরু হয়েছে ম্যাজিস্ট্রেট পর্যায়ের তদন্ত। সাব-ডিভিশনাল ম্যাজিস্ট্রেট রেণু সিংয়ের নেতৃত্বে এই তদন্ত পরিচালিত হবে।

ওই ঘটনার সময় উপস্থিত এক ছাত্রী জানায়, ওই ওয়ার্ডেন আমাদের হোস্টেল রুম থেকে নিচে নেমে আসতে বলেন। তখন অন্য কোনো শিক্ষিকা ছিলেন না। উনি আমাদের প্রত্যেককে পোশাক খুলতে বলেন। না খুলতে চাইলে, পেটাবেন বলে হুমকিও দেন। ভয়ে সবাই বিবস্ত্র হতে বাধ্য় হয়।

এদিকে ওয়ার্ডেন তার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে অভিযোগ তোলা হয়েছে বলে দাবি করেছেন। অনেক শিক্ষিকাই আমাকে পছন্দ করেন না। তার জন্যই আমাকে তাড়াতে পরিকল্পিতভাবে মিথ্যে অভিযোগ আনা হয়েছে, বলেন ওয়ার্ডেন। সূত্র: এই সময়



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / আ/ম

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা