লোকেশন

প্রায় সাড়ে চার মাস পর অপহৃত স্কুল ছাত্রীকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে উদ্ধার করেছে তুরাগ থানা পুলিশ। এসময় ২ অপহরনকারীকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন ময়মনসিংহ জেলার হাটুলিয়া গ্রামের রাসেল মিয়া (১৯) ও তার পিতা মো: শহিদ মিয়া (৪৫)।
পুলিশ জানায়,তুরাগের বাউনিয়া আব্দুল জলিল হাই স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেনীর এক শিক্ষার্থী(১৩) কে গত ২১ মে আনুমানিক সন্ধ্যা ৭টার দিকে বাউনিয়া বায়তুল জামে মসজিদের সামনে থেকে অপহরন করে নিয়ে যায় দূর্বৃত্তরা। পরে অনেক খোজাঁ খুজির পর মেয়েটিকে না পেয়ে গত ২৮মে তুরাগ থানা পুলিশ ফাড়িঁতে এসে অপহরন মামলা দায়ের করে ভুক্তভোগী মেয়েটির বাবা। যাহার মামলা নং-২৩,২৮/০৫/২০১৭।
দীর্ঘ দিনেও অপহরন হওয়া শিক্ষার্থীকে উদ্ধার না হওয়ায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পরিবর্তন করে তুরাগ থানার এসআই মাহবুব আলীকে এ মামলার তদন্ত দেয়া হয়। পরে মোবাইল প্রযুক্তি ব্যবহার করে অপহরনকারীদের অবস্থান সনাক্ত হলে আসামীদের ধরতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদরের ফুলবাড়ি গ্রামে সোমবার অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় ওই গ্রামের কাসেম আলীর ভাড়াটিয়া বাসা থেকে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী উদ্ধার সহ ২ অপহরনকারীকে গ্রেফতার করে তুরাগ থানায় নিয়ে আসা হয়। উদ্ধারের পর মেয়েটি পুলিশকে প্রাথমিকভাবে জানায় তাকে গত সাড়ে ৪ মাস যাবত নিয়মিত ধর্ষণ করতো অপহরনকারী রাসেল। এসময় মেয়েটি আরো জানায়, রাসেলের বাবা শহিদ মিয়া প্রায়ই তার উপর শারীরিক নির্যাতন করতেন।
তুরাগ থানার ওসি অপারেশন দুলাল হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, অপহরন হওয়া মেয়েটিকে উদ্ধারের পর ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি) তে পাঠানো হয়েছে। আজ মঙ্গলবার সকালে ২ অপহরণকারী কোর্টে প্রেরন করা হয়।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / এমআরআর

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা