haj_un.jpg

সৌদি আরব সরকার মোয়াল্লেমদের ফি বাড়িয়েছে। ওই অর্থে মোয়াল্লেম দিয়ে হজযাত্রী আনা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে মক্কার ৯১টি হজ এজেন্সি। এ কারণে ১৮ হাজার বাংলাদেশির হজ করা অনিশ্চিত হয়ে পড়ল। 

 

বুধবার রাতে সৌদি আরবের মক্কায় বাংলাদেশ হজ মিশনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি করে তারা। এ বিষয়ে তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

ওই অর্থে মোয়াল্লেম দিয়ে হজযাত্রী আনা সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে মক্কার ৯১টি হজ এজেন্সি। এ কারণে ১৮ হাজার বাংলাদেশির হজ করা অনিশ্চিত হয়ে পড়ল। 

 

সংবাদ সম্মেলনে হজ এজেন্সির মালিকরা জানান, বাংলাদেশ সরকার ঘোষিত হজ প্যাকেজের আওতায় গত বছর ডি গ্রেডের মোয়াল্লেম ফি ৫২০ রিয়াল ধার্য ছিল। নির্ধারিত ফিতে হাজিদের সেবা দিতে প্রস্তুতি নিয়ে মানুষদের কাছ থেকে কম টাকা নেন হজ এজেন্সিরা। যা এখন ডি গ্রেডে ৭২০ রিয়াল নির্ধারণ করে সৌদি সরকার। ওই অর্থে মোয়াল্লেম দিয়ে হজযাত্রী আনা সম্ভব নয় বলে জানান তারা।

 

এজেন্সিরা বলেন, সৌদি হজ মন্ত্রণালয় ও হজ কাউন্সিল দুই মাস আগে বিভিন্ন গ্রেডের মোয়াল্লেমদের ফি বৃদ্ধি করে। প্রথম এ গ্রেডে ৩৯৫০ রিয়াল, বি গ্রেডে ১৯০০ রিয়াল, সি গ্রেডে ১৫০০ রিয়াল ও ডি গ্রেডে ৭২০ রিয়াল নির্ধারণ করে।

 

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, এজেন্সিগুলো সাধারণত ডি গ্রেডের মোয়াল্লেমদের মাধ্যমে হাজি নিয়ে আসে। ওই গ্রেডের মোয়াল্লেম ফি বাড়ানো হয়েছে। সৌদি আইনের বাইরে তাদের কিছুই করার নেই। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপে এই দূর অবস্থা থেকে তাঁরা মুক্তি পেতে পারেন বলে জানান মালিক-প্রতিনিধিরা।

 

তারা অভিযোগ করে বলেন, ফি বৃদ্ধির বিষয়ে বাংলাদেশ হজ মিশন ও হজ কাউন্সিল তাদের কিছু জানায়নি। তাঁরা এখন হজযাত্রীদের হজ করা নিয়ে চিন্তিত। জনপ্রতি দেড় হাজার রিয়াল মোয়াল্লেম ফি দিয়ে হাজিদের সেবা দেওয়া প্রায়ই অসম্ভব। আগামী কয়েকদিনের মধ্য এই সমস্যার সমাধান না হলে ১৮ হাজার বাংলাদেশির হজ করা অনিশ্চিত হয়ে পড়বে।

 

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন মো. রেদুয়ান খান বোরহান, ফিরোজ কিবরিয়া প্রমুখ।



উত্তরানিউজ২৪ডটকম / ডেস্ক রিপোর্ট

recommend to friends
  • gplus

পাঠকের মন্তব্য

ফেসবুকে আমরা